সোমবার, ২২ Jul ২০২৪, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন

শেরে বাংলা একে ফজলুল হক

শেরে বাংলা একে ফজলুল হক

আবুল কাশেম ফজলুল হক- যাকে বাংলার বাঘ বলা হত। ভারতের ভবিষ্যত শাসনতন্ত্রের রূপরেখা নির্ধারণের লক্ষ্যে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী স্যার র‌্যামজে ম্যাক ডোনাল্ড (James Ramsay Mac Donald) একটি গোলটেবিল বৈঠকের আহবান করেন। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে মহাত্মা গান্ধী এই বৈঠক প্রত্যাখান করেন। কিন্তু, মুসলিম লীগ সেই বৈঠকে অংশগ্রহণ করে। ১৯৩০-১৯৩১ সালের প্রথম গোলটেবিল বৈঠকে ফজলুল হক বাংলা এবং পাঞ্জাবের মুসলমানদের জন্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিনিধিত্ব দাবি করেছিলনে। তিনি স্বতন্ত্র নির্বাচনের পক্ষে বক্তৃতা দেন।
শুধু তাই নয়, ১৯৩৫ সালে এ. কে. ফজলুল হক কলকাতা মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। এবং তিনিই কলকাতা মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের প্রথম মুসলিম মেয়র।
১৯২৪ সালে শিক্ষামন্ত্রীর পদে ইস্তফা দেয়ার পর থেকে আবুল কাশেম ফজলুল হক সম্পূর্ণরূপে জড়িয়ে পড়েছিলেন কৃষকদের রাজনীতি নিয়ে। ১৯২৯ সালের ৪ জুলাই বঙ্গীয় আইন পরিষদের ২৫ জন মুসলিম সদস্যদেরকে নিয়ে কলকাতায় একটি সম্মেলনে মিলিত হন। এই সম্মেলনে ‘নিখিল বঙ্গ প্রজা সমিতি’ নামে একটি দল গঠনের সিদ্ধান্ত হয়।
১৯৩৭ সালের মার্চে বঙ্গীয় আইন পরিষদের নির্বাচনে কৃষক প্রজা পার্টির পক্ষ থেকে পটুয়াখালী নির্বাচনী এলাকা থেকে এ. কে. ফজলুল হক ও মুসলিম লীগের মনোনীত প্রার্থী পটুয়াখালীর জমিদার ও ঢাকার নবাব পরিবারের সদস্য খাজা নাজিমুদ্দিন প্রতিদ্বন্ধীতা করেন। কিন্তু মুসলিম লীগ প্রার্থী খাজা নাজিমুদ্দিনের নির্বাচনী প্রতীক ছিল “হারিকেন” আর হক সাহেবের কৃষক প্রজা পার্টির প্রতীক ছিল “লাঙ্গল”। কৃষক প্রজা পার্টির শ্লোগান ছিল, “লাঙল যার জমি তার, ঘাম যার দাম তার”। অপরদিকে, খাজা নাজিমুদ্দিন ৫,০০০ হাজার ভোট পেয়ে ৭,০০০ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এই নির্বাচনে কৃষক প্রজা পার্টি ৩৯টি সাধারণ আসন ও মুসলিম লীগ ৩৮ টি আসনে জয় লাভ করে। মুসলিমলীগের সাথে সমঝোতায় গিয়ে একে ফজলুল হক ১১ সদস্য বিশিস্ট মন্ত্রী পরিষদ গঠন করে। মন্ত্রীসভায় তিন জন কৃষক প্রজা পার্টির ও তিন জন মুসলীম লীগের এবং তিন জন বর্নহিন্দু এবং ২জন তফসীলী সম্প্রদায়ে সদস্য ছিল। তথাপি অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেরেবাংলা প্রধানমন্ত্রীর পদ অলংকিত করেন। তখন ফজলুল হক চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রথা বিলোপ, ভূমি ব্যবস্থার সংস্কার, শিক্ষা ব্যবস্থার পূর্ণগঠন, ঋণ সালিসী বোর্ড গঠনসহ অনেকগুলো ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

শুধু তাই নয়, ১৯৪০ সারে লাহোরে সর্ব ভারতীয় মুসলীমলীগের অধিবেশনে- লাহোর প্রস্তাব পেশ করেন। তখন উপস্থিত নেতাকর্মীরা তাঁকে বাংলার বাঘ  বা শেরে বাংলা উপাধিতে ভূষিত করেন।

অসামান্য প্রতিভার অধিকারী শেরে বাংলা কলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে একই সাথে তিন বিষয়ে (অংকশাস্ত্র, পদার্থ ও রসায়ন) কৃতিত্বের সাথে অনার্স করেন। এছাড়াও উনি আইনে ডিগ্রি নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে প্রাকটিস করেন। ‘৫৪-এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে উনার নেতৃত্বে নৌকা প্রতীক মুসলীমলীগ সরকারকে ধরাসায়ী করেন। তখন তিনি পূর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী মনোনীত হন। কিন্তু প্রসাদ ষড়যন্ত্রে- অল্প কিছুদিনের মধ্যে গভর্ণরের কেন্দ্রীয় শাসন ৯২ (ক) ধারা জারি করে উনাকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়।

শাফায়েত জামিল রাজীব
সম্পাদক
একুশে টাইমস্

 

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana