মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:১৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে প্রতারণার মাধ্যমে ডেকোরেটরের মালামাল আত্মসাৎ ভৈরবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাসে ২ ঘন্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক  হোসেনপুরে নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার ভৈরবে গাজাঁসহ ১ মাদককারবারি গ্রেফতার কিশোরগঞ্জের সাবেক এমপি আলমগীরের ৩১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত রাজশাহীতে ১৩১৬ কোটি টাকার প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কুলিয়ারচরে স্থানীয় সাংসদ ও বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকে সংবর্ধনা কিশোরগঞ্জে আল ইমদাদী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কেরাত, হামদ-নাত মাসনুন দোয়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জে তামাক নিয়ন্ত্রণ জেলা টাস্কফোর্স কমিটির এৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত কুলিয়ারচরে উপজেলা চেয়ারম্যানের বক্তব্যকে ঘিরে উত্তোপ্ত পরিস্থিতি ক্ষমার মাধ্যমে শান্ত
প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের পর চা শ্রমিকের ন্যূনতম মজুরি ১৭০ টাকা

প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের পর চা শ্রমিকের ন্যূনতম মজুরি ১৭০ টাকা

একুশে ডেস্ক:

দৈনিক মজুরি ৩০০ টাকার দাবিতে আন্দোলন করে আসা চা শ্রমিকদের এখন ন্যূনতম দৈনিক মজুরি ১৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস।

মুখ্য সচিব বলেন, দৈনিক ১৭০ টাকা সর্বনিম্ন মজুরির সঙ্গে বোনাস, বার্ষিক ছুটি ভাতা আনুপাতিক হারে বাড়বে। বেতনসহ উৎসব ছুটি আনুপাতিক হারে বাড়বে। অসুস্থতাজনিত ছুটির টাকা ও ভবিষ্যত তহবিলে নিয়োগকর্তার চাঁদা আনুপাতিক হারে বাড়বে। বার্ষিক উৎসব ভাতাও আনুপাতিক হারে বাড়বে।

সব মিলে ন্যূনতম মজুরি দৈনিক প্রায় সাড়ে ৪শ থেকে ৫শ টাকা পড়বে বলে জানান আহমদ কায়কাউস।

মুখ্য সচিব জানান, চা শ্রমিকদের সঙ্গে বসবেন প্রধানমন্ত্রী। শিগগিরই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আলোচনা করবেন।প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল (রোববার) থেকেই সবাইকে কাজে যোগ দিতে বলেছেন।

গত ৯ আগস্ট থেকে দুই ঘণ্টা করে কর্মবিরতি এবং পরে ১৩ আগস্ট অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট পালন করছেন চা শ্রমিকরা।শ্রমিকদের টানা ধর্মঘটে স্থবির চা শিল্প।প্রশাসন থেকে শুরু করে চা শ্রমিক সংগঠনের নেতারা কয়েক দফায় চেষ্টা করেও শ্রমিকদের কাজে ফেরাতে পারেননি।শ্রমিকদের সাফ কথা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা ছাড়া তারা কাজে ফিরবেন না।

এদিকে ভরা মৌসুমে মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে শ্রমিকদের টানা ১৭ দিনের আন্দোলনের কারণে কয়েকশ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে চা শিল্পে। শ্রমিকদের আন্দোলনের প্রথম দিকে সব চা বাগানে উত্তোলন করা কাঁচা চায়ের পাতা সময়মতো প্রক্রিয়াজাত করতে না পারায় পচে ও শুকিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে।

এ ছাড়া চা প্ল্যান্টেশন এলাকা থেকে কচি চা পাতা তুলতে না পারায় সেগুলোও এক থেকে দেড় ফুট লম্বা হয়ে গেছে। এ পাতা চায়ের জন্য প্রক্রিয়াজাত করা সম্ভব নয়।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana