বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৭:৪৭ পূর্বাহ্ন

সিলেট সুনামগঞ্জে মানবিক বিপর্যয়

সিলেট সুনামগঞ্জে মানবিক বিপর্যয়

একুশে ডেস্ক:

সিলেট-সুনামগঞ্জে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে। গ্রাম কী শহর-সবই পানিতে একাকার। সিলেট রেলওয়ে স্টেশন, ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায়ও পানি ঢুকে পড়েছে।

সিলেটে এমন এমন জায়গায় পানি উঠেছে, যেখানে গত ৬০ বছরেও কখনো পানি উঠেনি। দুই জেলার প্রায় ৪০ লাখ মানুষ পানিবন্দি। অনেকের ঘরে খাবার নেই। বিশুদ্ধ পানি নেই। দুদিন ধরে বিদ্যুৎ সংযোগও বিচ্ছিন্ন।

ফলে সন্ধ্যা নামতেই গোটা অঞ্চলে ভূতুড়ে পরিবেশ তৈরি হয়। নেই মোবাইল নেটওয়ার্ক। ইন্টারনেট সেবাও বন্ধ। মোমবাতি আর জ্বালানি তেলের সংকটে অনেক বাসায় জ্বলেনি আলোও। এর মধ্যে টানা বৃষ্টি আর ক্ষণে ক্ষণে বজ পাত।

নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে আর্তনাদ করছেন মানুষ। অনেকে পানি-স্রোত ভেঙে ছুটছেন। সবচেয়ে বিপদে আছে শিশু ও বয়স্করা। আটকে পড়াদের উদ্ধারে কাজ করছেন সেনা, নৌবাহিনী, বিজিবি ও কোস্টগার্ডের সদস্যরা। এতে বিমানবাহিনীর ৪টি হেলিকপ্টার যুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া ফায়ার সার্ভিসের সব ছুটি বাতিল করে সদস্যদের মাঠে রাখা হয়েছে।

বানভাসি মানুষ জানিয়েছেন, সারা দেশের সঙ্গে সুনামগঞ্জ জেলার যোগাযোগ স্থাপনকারী সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার থেকে পুরো জেলা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। জেলার সঙ্গে উপজেলা সদরের সড়কগুলোও ডুবে যাওয়ায় প্রতিটি উপজেলা এখন কার্যত বিচ্ছিন্ন। ভেসে যাচ্ছে গবাদি পশু, পুকুরের মাছ। নষ্ট হচ্ছে মৌসুমি ফসল।

সিলেটের জেলা প্রশাসক মজিবর রহমান বলেন, পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে; কিন্তু উদ্ধার করে নিয়ে আসার মতো পর্যাপ্ত যানবাহন নেই। এমতাবস্থায় পানিবন্দি মানুষকে উদ্ধারে সেনাবাহিনীর পাশাপাশি নৌবাহিনীর বোট ও ডুবুরি দল যোগ দিয়েছে।

সেনাবাহিনীর ১৭ পদাতিক ডিভিশন, সিলেট সেনানিবাসের প্রধান মেজর জেনারেল হামিদুল হক বলেন, আটটি উপজেলায় আমরা সেনা মোতায়েন করেছি। সেনা সদস্যরা পানিবন্দি মানুষকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নেওয়া, বেসামরিক প্রশাসনের সহায়তায় অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্র নির্বাচন এবং উদ্ধারকৃতদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা, চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া, খাদ্য গোডাউন, পাওয়ার স্টেশন এবং অন্যান্য স্থাপনা রক্ষায় কাজ করছে। এছাড়া সীমিত পরিসরে খাদ্য ও সুপেয় পানি সরবরাহে কাজ করছে।

সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেছেন, সিলেট ও সুনামগঞ্জের ১২ উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ। এসব এলাকায় আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

সিলেট দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ শাখা জানিয়েছে, ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ৭ হাজার ৯০০ বস্তা শুকনো খাবারের প্যাকেট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয় আরও ৮ হাজার প্যাকেট খাবার ও ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।

এদিকে সিলেট-সুনামগঞ্জ ছাড়াও দেশের আরও অন্তত ১২ জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এসব জেলায় বন্যায় ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সিলেট ও সুনামগঞ্জ : বন্যার পানি উঠেছে হাসপাতাল, কলেজ, বাসাবাড়ি, আড়ত, দোকানপাটে। নগরীর মাছিমপুর, ছড়ারপাড়, শাহজালাল উপশহর, তেরোরতন এলাকা ডুবে আছে তিন দিন ধরে।

সোবহানীঘাট, মেন্দিবাগ, নাইওরপুল, মিরাবাজার, টিলাগড়, শেখঘাট, তালতলা, মাছুদীঘির পাড়, জামতলা, মির্জাজাঙ্গাল, বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার, দাড়িয়াপাড়া এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে আছে।

তিন দিন ধরে পানিবন্দি নগরীর যতরপুরের বাসিন্দা রাবেয়া আক্তার বলেন, বাসা পানিতে ডুবানো, দুটি এতিম বাচ্চা নিয়ে একটি ভবনের ছাদে আছি। কিন্তু কেউ একটু খবরও নিল না। কোথায় থাকি, কী খাই। তিনি বলেন, বাচ্চারাসহ আমি গত বন্যায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিলাম দুর্গন্ধযুক্ত পানি খেয়ে। এবারও খাবার নেই, পানি নেই।

মাছিমপুরে পানিবন্দি রমেন্দ্র সিংহ বাপ্পা বলেন, আর কদিন পানিতে থাকতে হবে জানি না। কষ্ট বেশি হয়ে যাচ্ছে, তাই বৃদ্ধ ও শিশুদের অন্যত্র পাঠিয়ে আমি ঘর পাহারায় আছি।

বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, সুনামগঞ্জ শহরের অধিকাংশ বাসার চুলা পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় রান্নাবান্না বন্ধ আছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সংকট আরও বেড়েছে। এ অবস্থায় শহরে খাদ্যসংকট তৈরি হয়েছে। বিশুদ্ধ পানিও পাওয়া যাচ্ছে না। টানা বৃষ্টিপাত আর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বানভাসি মানুষের আশঙ্কা আরও বাড়ছে।

ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলার বন্যাকবলিত দুই ব্যক্তি জানিয়েছেন, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় প্রসূতি ও অসুস্থ ব্যক্তিদের ভোগান্তি বেড়েছে। পানি ক্রমাগত বাড়ছে। অনেক বাড়িতেই কোমরসমান পানি। মানুষ আতঙ্কে আছে। আপাতত জীবন রক্ষার জন্য মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে প্রাণান্তকর চেষ্টা করছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ শাহনাজ সুলতানা জানান, আগামী তিন দিন সিলেট বিভাগে আরও বৃষ্টি হবে। ভাঙতে পারে অতীতের সব রেকর্ড। এতে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন : বিদ্যুৎ স্টেশনগুলোয় পানি প্রবেশ করায় সুনামগঞ্জে তিন দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। সিলেটে বন্যাকবলিত বিভিন্ন উপজেলায় শুক্রবার থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রয়েছে। এছাড়া সিলেট শহর এলাকায় প্রধান গ্রিড পানিতে ডুবে যাওয়ায় শনিবার টানা ৬ ঘণ্টা বিদ্যুৎহীন ছিল সিলেট ও সুনামগঞ্জ।

সন্ধ্যা ৬টায় গ্রিড চালু করা হলে কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ স্বাভাবিক হয়। বিদ্যুৎ না থাকায় স্থানীয়রা মোমবাতি ও কেরোসিন তেলের বাতি জ্বালাচ্ছেন। কিন্তু এ দুটিরও সংকট দেখা দিয়েছে। তাছাড়া বিভিন্ন সড়কে পানি ওঠায় ঘর থেকেই বের হতে পারছেন না মানুষ।

তাই বাজারে গিয়ে মোমবাতি বা তেল সংগ্রহও কঠিন হয়ে পড়েছে। সিলেট সদরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন কোম্পানীগঞ্জ আর গোয়াইনঘাটের। নগরীতে ৩৬টিসহ জেলায় মোট ৪৭৩টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগ সিলেটের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল কাদের জানান, সাকার মেশিন দিয়ে পানি সেচে সেনাবাহিনীর বিশেষ উদ্যোগে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি সন্ধ্যায় চালু করা গেছে। তবে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে গুটি কয়েক এলাকায়।

বন্যার পানিতে বিদ্যুতের সাব-স্টেশনগুলো ডুবে যাওয়ায় জ্বালানি গ্যাস ও তেল বিক্রি বন্ধ থাকে পাম্পগুলোতে। তাছাড়া অফিস-আদালতসহ বিভিন্ন দপ্তর জেনারেটর নির্ভর হয়ে পড়েছে। এ সময় জ্বালানি তেল ১০-২০ টাকা বেশি দরে খোলাবাজারে বিক্রি করেন অসাধু ব্যবসায়ীরা।

জিন্দাবাজারের অফিসকর্মী রুবেল মিয়া বলেন, পাম্পে তেল বিক্রি বন্ধ ছিল তাই খোলাবাজার থেকে প্রতি লিটারে ১০ টাকা দরে কিনেছি।

বন্যার্তদের উদ্ধার তৎপরতা : বন্যাকবলিত এলাকার মানুষকে উদ্ধার করে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসাই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভুক্তভোগী অনেকেই বলছেন, তারা ত্রাণের আগে চান নিরাপদ আশ্রয়।

কিন্তু দুর্গত এলাকা থেকে মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসার জন্য পর্যাপ্ত নৌকা-ভেলা নেই। সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যাদুর্গত এলাকায় পানিবন্দি লোকজনকে উদ্ধারে শুক্রবার বিকাল থেকে সেনাবাহিনীর ১০ প্লাটুন, ৬টি মেডিকেল টিম কাজ শুরু করে। শনিবার সকাল থেকে নৌবাহিনীর ৩৫ সদস্য দুটি টিমে ভাগ হয়ে কাজ শুরু করেছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, নৌবাহিনীর ৩৫ সদস্যের একটি দল শুক্রবার রাতে সিলেট এসে পৌঁছায়। শনিবার সকাল থেকে ৩৫ সদস্যের দল কোস্টগার্ডের একটি ক্রুজ ও বিমানবাহিনীর চারটি হেলিকপ্টার দিয়ে উদ্ধার কাজ শুরু করে।

সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নে একটি টিম সকাল থেকে কাজ শুরু করে। আরেকটি টিম কোম্পানীগঞ্জে কাজ শুরু করেছে। বিকালে নৌবাহিনীর আরও ৬০ সদস্যের একটি দল সিলেট এসেছে। তারা আরও দুটি ক্রুজ নিয়ে উদ্ধার কাজে যোগ দেন।

সেনাবাহিনীর উদ্ধারকারী টিমের মোবাইল নাম্বার : বানভাসি মানুষদের উদ্ধারে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর টিমের মোবাইল নাম্বার সরবরাহ করেছে র‌্যাব-৯। সিলেট ও সুনামগঞ্জের দুর্গত উপজেলাগুলোর মানুষ এ নাম্বারগুলোতে যোগাযোগ করতে পারবেন।

উদ্ধার কাজের দায়িত্বপ্রাপ্তরা হলেন-মেজর আশিক, দিরাই-জামালগঞ্জ, সুনামগঞ্জ। মোবাইল : ০১৭৬৯-০০৮৭৩৬। মেজর আশাবুর, ছাতক-দোয়ারাবাজার, সুনামগঞ্জ। মোবাইল : ০১৭৬৯-১৭২৪৫৪। মেজর মোক্তাদির, কুমারগাঁও পাওয়ার স্টেশন, সিলেট।

মোবাইল : ০১৭৬৯-১১২৫৫৬। ক্যাপ্টেন মারুফ, কোম্পানীগঞ্জ, সিলেট। মোবাইল : ০১৭৬৯-০০৯৩৮২। ক্যাপ্টেন আশরাফ, গোয়াইনঘাট, সিলেট। মোবাইল : ০১৭৬৯-১৭২৫৬৪। ক্যাপ্টেন ফয়সাল, সিলেট সদর উপজেলা। মোবাইল : ০১৬২৬-২৯১৫৭৭।

সব ফায়ার স্টেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল : সিলেটের ভয়াবহ বন্যায় উদ্ধার তৎপরতা ও মানবিক সহায়তায় কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সও। কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় খোলা হয়েছে মনিটরিং সেল।

জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় সিলেটের সব ফায়ার স্টেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করে সবাইকে স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মিডিয়া শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহজাহান সিকদার বলেন, সিলেট সদরের খাদ্য গুদামে ঢুকে পড়া পানি নিয়মিতভাবে পাম্পের মাধ্যমে সেচের কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট।

এছাড়া বিপর্যয়ের মুখে থাকা কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রেও নিয়োজিত করা হয়েছে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট। সেখানেও তারা পানি সেচের কাজ করছে। তিনি জানান, সিলেটে জেমিনি বোট পাঠানো হয়েছে। জেমিনি বোটের সাহায্যে বিভিন্ন স্থানে আটকে পড়া লোকদের উদ্ধার করে আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়ার কাজ শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস।

সিলেট থেকে বিমানের সব ফ্লাইট বাতিল : সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ জানান, ২২ জুন পর্যন্ত বিমানের সব ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টার ফ্লাইট ঢাকা থেকে সিলেট হয়ে লন্ডন যাওয়ার কথা ছিল।

সেটি বাতিল করা হয়। রোববার ও বুধবার বিমানের ঢাকা-সিলেট-লন্ডন ফ্লাইট ছিল সেগুলোও বাতিল করা হয়েছে।

সিলেট মেডিকেল কলেজ বন্ধ : সিলেট ওসমানী মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে পানি ঢুকে পড়ায় চিকিৎসা সেবা বিঘ্নিত হচ্ছে। এছাড়াও বিদ্যুতের অনিশ্চয়তায় চরম দুর্ভোগে আছেন রোগীরা। ইন্টার্ন চিকিৎসক ইবনে হাসান রাব্বী বলেন, বিদ্যুৎ সংকট এবং হাসপাতালে পানি ঢুকে পড়ায় চিকিৎসা সেবা দিতে বেগ পেতে হচ্ছে।

এদিকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কলেজের অধ্যক্ষ ড. মঈনুল হক বলেন, আবাসিক হল ও কলেজে পানি ঢুকে পড়ায় আপাতত কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। স্থগিত করা হয়েছে ক্লাস ও পরীক্ষা।

ফের ডুবছে জকিগঞ্জ কানাইঘাট : প্রথম দফা বন্যায় সুরমা-কুশিয়ারা নদীর অন্তত ১৫ স্থানে ভেঙে যাওয়া ডাইক মেরামত না করায় ফের ডুবছে সিলেটের সীমান্তবর্তী জকিগঞ্জের কানাইঘাট। ভাঙা ডাইক দিয়ে ফের প্রবল বেগে পানি ঢুকছে লোকালয়ে। ফলে নতুন করে প্লাবিত হচ্ছে অনেক এলাকা।

সিলেট-সুনামগঞ্জে ৬০০ আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে-দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী : সিলেট ও সুনামগঞ্জে ৬০০ আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান।

শনিবার আশুলিয়ার জিরাবো এলাকায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য দেন। তিনি আরও বলেন, বন্যার্তদের জন্য এখন পর্যন্ত ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া ২০০ টন চাল ও আট হাজার শুকনো খাবারের প্যাকেট দেওয়া হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জু দেওয়ান প্রমুখ।

রেললাইনের ক্ষয়ক্ষতি : ঢাকা রেলওয়ে বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম যুগান্তরকে জানান, বন্যায় সিলেট, নেত্রকোনাসহ বিভিন্ন স্থানে রেলপথের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে লাইন ধসে গেছে। রেলওয়ে সেতু ভেঙে গেছে। বন্যার পানি উঠেছে সিলেটসহ বেশ কয়েকটি রেলওয়ে স্টেশনে।

তিনি আরও বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্তা ও সেবা নিশ্চিত করতে বন্যা কবলিত স্টেশন থেকে ট্রেন চলাচল সাময়িক ভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। ঢাকা, চট্টগ্রামের সঙ্গে সিলেট লাইনে চলা ট্রেনগুলো স্টেশন পরিবর্তন করে চালানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ঢাকা থেকে সিলেটগামী পারাবত, জয়ন্তিকা, উপকূল, কালনি এক্সপ্রেস ট্রেন ঢাকা থেকে সিলেট পর্যন্ত না গিয়ে, ঢাকা থেকে ছেড়ে সিলেটের মাইজগাঁ ও মোগলাবাজার পর্যন্ত চলাচল করবে। একই সঙ্গে সিলেট-চট্টগ্রামে চলা পাহাড়িকা ও উদয় ট্রেন দুটি চট্টগ্রাম থেকে মাইজগাঁও রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত চলাচল করবে।

ঢাকা নেত্রকোনা লাইনে চলা ট্রেন মোহনগঞ্জের বারহাট্টা রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত চলাচল করবে। ওই পথের বারহাট্টা মোহনগঞ্জের মধ্যস্থলে রেলের একটি ব্রিজ পানির স্রোতে ভেঙে গেছে।

আরও বিভিন্ন জেলায় বন্যা ও নদ-নদী পরিস্থিতি : উত্তরাঞ্চলে একদিনেই আরও চার জেলায় বন্যা বিস্তৃত হয়েছে। আগে থেকে নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর ও জামালপুরে বন্যা চলছিল। এই তালিকায় শনিবার যুক্ত হয়েছে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া ও সিরাজগঞ্জ।

সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বানের পানি মূল নদী থেকে শাখা নদীগুলোতে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এরই মধ্যে মধ্যাঞ্চলেও বন্যার পানি পৌঁছে গেছে। শনিবার শরীয়তপুরের সুরেশ্বর পয়েন্টে পদ্মা বিপৎসীমা পার করেছে।

আগামী ৭২ ঘণ্টা দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন ভারতের আসাম, মেঘালয় ও হিমালয় পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গের কিছু স্থানে মাঝারি থেকে ভারি আবার কোথাও অতি ভারি বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে। ফলে অন্তত দুদিন দুর্গত এলাকাগুলোতে বৃষ্টির পাশাপাশি উজান থেকে আসা বানের পানির কারণে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি অব্যাহত থাকবে।

আবহাওয়া ও বন্যা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই বন্যার মূল কারণ অতি ভারি বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢল। প্রায় সারা দেশেই মাঝারি থেকে ভারি আবার কোথাও অতি ভারি বৃষ্টি হচ্ছে। তবে সিলেট, ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম, রংপুর অঞ্চলে ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টির প্রবণতা বেশি।

এফএফডব্লিউসির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, সুরমা নদী ছাড়া দেশের আর সব নদ-নদীর পানির সমতলই বাড়ছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় একদিকে সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা, অন্যদিকে লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর ও কুড়িগ্রামের বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটতে পারে।

এফএফডব্লিউসির তথ্য অনুযায়ী, এই মুহূর্তে ১১টি নদী ১৭ স্থানে বিপৎসীমার উপরে প্রবাহিত হচ্ছে। এগুলো হচ্ছ-ব্রহ্মপুত্র, যমুনা, দুধকুমোর, ধরলা, সুরমা, কুশিয়ারা, সারিগোয়াইন, খোয়াই, পুরাতন সুরমা, সোমেশ্বরী ও কংস। তিস্তা শুক্রবার বিপৎসীমার উপরে থাকলেও শনিবার পানি নিচে নেমে গেছে।

নেত্রকোনা, কলমাকান্দা, দুর্গাপুর, মোহনগঞ্জ, মদন ও কেন্দুয়া : কলমাকান্দা ও দুর্গাপুরে প্রায় সব গ্রামে বন্যার পানি থইথই করছে। এ ছাড়া খালিয়াজুরি, সদর, আটপাড়া, মদন ও বারহাট্টা উপজেলা মিলে প্রায় ছয় লাখ মানুষ পানিবন্দি। এছাড়া কেন্দুয়ায় গুচ্ছগ্রামসহ ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

জেলার সঙ্গে কলমাকান্দা ও দুর্গাপুরের সড়কপথ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। দুর্গাপুরের চণ্ডিগড় ইউনিয়নের মউ গ্রামের তারা মিয়া বলেন, ‘গাঙ্গ আমরার বাড়িত আইয়া পড়ছে, কইনো যাইতাম ওহন। যাউনের কোনো ঠিহানা জানা নাই। বাড়িঘরের অর্ধেক ভাইঙা গেছে।

বাহিটা হয়তো কদিনের মধ্যেই যাইবোগা, অহন আর কোনো ট্যাহা-পয়সাও নাই। কুছতা কিইন্না খাইতাম।’ শনিবার সকালে মোহনগঞ্জ রেলস্টেশনের অদূরে ইসলামপুর নামক স্থানে পানির তোড়ে একটি রেল সেতু ভেসে গেছে। এরপর ঢাকার সঙ্গে মোহনগঞ্জের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ জানান, জেলার ছয়টি উপজেলায় ১৮৮টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ১৬ হাজার ৪৮০ জন ঠাঁই নিয়েছেন। বন্যাকবলিত প্রতিটি উপজেলায় কন্ট্রোলরুম খোলাসহ মেডিকেল টিম নিয়োজিত রয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ওয়াদুল্লাহ বলেন, কলমাকান্দা, দুর্গাপুর, বারহাট্টাসহ ছয়টি উপজেলায় প্রায় সাড়ে ৬ শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। এসব বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

শেরপুর ও নালিতাবাড়ী : চেল্লাখালি নদীর পানির তোড়ে ভেসে যায় দক্ষিণ সন্নাসিভিটা গ্রামের বেইলি ব্রিজ। এতে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বাঘবেড় ইউনিয়নের ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের কয়েক হাজার মানুষ। এছাড়াও ভেঙে যায় প্রায় ২০০ মিটার নদী তীর রক্ষা বাঁধ।

পানি প্রবেশ করেছে দক্ষিণ রানীগাঁও গ্রামের হাজারো মানুষের বাড়িঘরে। ভোগাই নদীর ঢলের প্রচণ্ড পানির তোড়ে পৌরসভার উত্তর গড়কান্দা, নিজপাড়া ও নালিতাবাড়ী ইউনিয়নের খালভাঙাসহ সাতটি এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। এসব এলাকা দিয়ে মানুষের ঘরবাড়িতে পানি প্রবেশ করেছে।

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের রাউতারা স্লুইচগেটসংলগ্ন রিং বাঁধ ভেঙে শাহজাদপুরসহ চলনবিলের পাবনা, নাটোর ও সিরাজগঞ্জের ৮ উপজেলার প্রায় ৪৫ হাজার হেক্টর ফসলের মাঠ প্লাবিত হয়েছে।

শুক্রবার রাত ১০টার দিকে অতিবর্ষণ ও উজানের ঢলের চাপে বাঁধটি ভেঙে যায়। ফসল রক্ষার জন্য সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড ২ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে অস্থায়ী এ বাঁধটি নির্মাণ করে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana