বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৭:০১ পূর্বাহ্ন

হানিমুনে গিয়েই মেরে ফেলতে চেয়েছিল জনি, আদালতে আম্বার

হানিমুনে গিয়েই মেরে ফেলতে চেয়েছিল জনি, আদালতে আম্বার

একুশে ডেস্ক:

হানিমুনের সময়ই আম্বার হার্ডকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন অভিনেতা জনি ডেপ। এমনকি, মাদকাসক্ত জনি সিগারেটের ছ্যাঁকা দিতেন আম্বারের গায়ে। আদালতে এমনই অভিযোগ করলেন জনি ডেপের সাবেক স্ত্রী আম্বার।

এক সময় গভীর ভালোবাসার সম্পর্ক ছিল জনি ডেপ আর আম্বারের। সে কথা মনে করলে ডুকরে কেঁদে ওঠেন আম্বার। বলেছেন, ভাবতে পারছেন না, সব কিছু এভাবে শেষ হয়ে যাবে! তিনি আজও ভালোবাসেন জনিকে, কিন্তু তিক্ততা এতটাই বেড়েছে, কিছুই যেন আর ঠিক হওয়ার নয়। আদালতে মামলা হয়েছে। সেখানে পারস্পরিক অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ উঠে আসছে।

২০১৭-তে বিচ্ছেদের পরেও কাদা ছোড়াছুড়ি শেষ হয়নি। ৫০ লাখ ডলার খরচ করে আম্বারের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছিলেন জনি। সেই মামলার শুনানি চলছে ভার্জিনিয়ার আদালতে।

তারকা হয়েও পারিবারিক সহিংসতার শিকার হয়েছেন দাবি করে পত্রিকায় নিবন্ধ লেখায় তাঁর বিরুদ্ধে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মানহানির মামলা করেছিলেন ‘পাইরেট অব দ্য ক্যারিবিয়ান’ তারকা জনি ডেপ। স্ত্রীর গায়ে হাত তোলার বিষয়টিও বারবার অস্বীকার করেছেন তিনি।

জনির বিরুদ্ধে আম্বারের একই অভিযোগ, তিনি শারীরিক নির্যাতন করতেন। সোমবার তিনি জানান, ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিয়ের পর হানিমুনে যাওয়ার পথে ওরিয়েন্ট এক্সপ্রেস ট্রেনে ভ্রমণের সময়ও জনি তাকে মেরেছেন।

আম্বার বলেন, তিনি আমার ঘাড় ধরে অনেকক্ষণ আমাকে গাড়ির সঙ্গে চেপে ধরেছিলেন। মনে হচ্ছিল সেদিনই আমাকে মেরে ফেলবেন। ভীষণ ভয় পেয়েছিলাম, কিন্তু বিশ্বাস হচ্ছিল না যে তিনি আমাকে মেরে ফেলতে পারেন।

অ্যাম্বারের দাবি, সেটাই ছিল শুরু। এর পর প্রায় প্রতি দিনই গার্হস্থ্য হিংসার শিকার হয়েছেন তিনি। অভিযোগ, জনি তার উপর সবরকম অত্যাচার করতেন। সেই সঙ্গে জনিকে মাদকাসক্ত এবং স্বেচ্ছাচারী হিসেবেও উল্লেখ করেন তার সাবেক স্ত্রী।

আম্বার বলেন, মারামারির সময় প্রায়ই তিনি নিজের হাত কেটে ফেলতেন, নয়তো ছুরি দিয়ে বুকের ওপর পোচ দিয়ে রক্ত বের করতেন। একবার তো নিজের গায়ে সিগারেটও ফেলেছিলেন।’এসব শুনে জনির আইনজীবীরা চ্যালেঞ্জ করেছিলেন, আসলেই জনি এসব করেছেন!

একজন অ্যাটর্নি তাই আম্বারের আগের দেওয়া সাক্ষ্যকে তিরস্কার করে প্রশ্ন তুলেছিলেন, এত মারধর আর শারীরিক নির্যাতনের কথা বলা হচ্ছে, অথচ ছবি ও মেডিকেল রেকর্ড এত কম কেন! জবাবে আম্বার জানিয়েছেন, ব্যক্তিগত থেরাপিস্ট ছাড়া তিনি কোথাও চিকিৎসা নেননি। আঘাতের ক্ষতে বরফ দিয়েছিলেন, কখনো সেগুলো মেকআপে ঢেকে রেখেছেন।

বিচার শুরুর আগে নিজের বক্তব্যে জনি ডেপ বলেছিলেন, তিনি কখনো আম্বারকে আঘাত করেননি এবং বিচারকদের বলেছিলেন, তার (আম্বার) এই সংঘাত এবং সহিংসতার ‘দরকার’ ছিল।

‘পারিবারিক সহিংসতার শিকার’ দাবি করে ওয়াশিংটন পোস্টে নিবন্ধ লেখার কারণে জনি ডেপ ২০১৮ সালে আম্বারের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছিলেন। যদিও তিনি সেখানে সরাসরি জনি ডেপের নাম লেখেননি।

তার অ্যাটর্নিরা অবশ্য বলেছেন যে নিবন্ধটি জনির খ্যাতি এবং ক্যারিয়ারকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। আম্বারও সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে ১০০ মিলিয়ন ডলারের মামলা করেছেন।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana