মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৯:২২ অপরাহ্ন

বাংলা নববর্ষ : নতুন দিনের প্রত্যাশা

বাংলা নববর্ষ : নতুন দিনের প্রত্যাশা

একুশে ডেস্ক :
বাংলা বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস বৈশাখ। আজ বৈশাখের প্রথম দিন। ভোরের সূর্য উদয়ের মধ্য দিয়ে শুরু হলো নতুন বছর, নতুন দিন। নববর্ষ মানেই নতুন ভাবনা, নতুন স্বপ্নের প্রত্যাশা। নিজেকে গড়বার নতুন কামনা। তবে নতুন বছরের সাফল্য অর্জনে প্রয়োজন বিগত বছরের সঠিক মূল্যায়ন। তাই আজকের দিনে আমাদের ফিরে তাকাতে হবে ফেলে আসা দিনগুলোর দিকেও। হিসাব-নিকাশে বসতে হবে অতীত জীবনের ডায়েরি খুলে। জীবনের ডায়েরিতে ধরা পড়বে অসংখ্য ভুল। প্রভুর দরবারে সেসব ভুলের ক্ষমা প্রার্থনা করা নববর্ষের প্রথম কাজ।
বিদায়ি বছর কী কী ব্যর্থতা ছিল, নতুন বছরে এসব ব্যর্থতা কীভাবে দূর করা যাবে, নতুন বছর ব্যক্তি, সমাজ, দেশ ও জাতির জন্য কী করতে পারি, প্রতিটি সময় সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারব কিনা, একজন মুসলিম ও দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে প্রতিটি মুহূর্ত আমার কাছে কী দাবি রাখে- এসব নিয়ে পরিকল্পনায় বসা নববর্ষের দ্বিতীয় কাজ।
সময় জীবনের অমূল্য সম্পদ। সময়কে হেলায়-ফেলায় কাটিয়ে দিলে পরজগতে আফসোসের সীমা থাকবে না। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘সেখানে তারা (অপরাধীরা) চিৎকার করে বলবে, হে আমাদের পালনকর্তা! আমাদের আবার দুনিয়ায় প্রেরণ করুন। আগে যা করেছি, তা আর করব না। তখন আল্লাহ বলবেন, আমি কি তোমাদের এতটা সময় দিইনি, যাতে উপদেশ গ্রহণ করতে পারতে? উপরন্তু তোমাদের কাছে সতর্ককারীরাও আগমন করেছিল। অতএব, আজাব আস্বাদন কর। জালেমদের কোনো সাহায্যকারী নেই।’ (সুরা ফাতির : ৩৭)। রাসুল (সা.) বলেন, ‘বুদ্ধিমান সে ব্যক্তি, যে নিজের জীবনের হিসাব নেয় এবং মৃত্যু-পরবর্তী জীবনের জন্য পুঁজি সংগ্রহ করে।’ (তিরমিজি, হাদিস: ২৪৫৯)। ইবনে ওমর (রা.) বলতেন, ‘তুমি সকালে উপনীত হলে সন্ধ্যা পর্যন্ত বেঁচে থাকার অপেক্ষা কর না এবং সন্ধ্যায় উপনীত হলে সকাল পর্যন্ত জীবিত থাকার আশা করো না। আর সুস্থ থাকা অবস্থায় অসুস্থ সময়ের জন্য আমল করে নাও এবং জীবন থাকতে মৃত্যু-পরবর্তী সময়ের পুঁজি সংগ্রহ করো।’ (বুখারি, হাদিস : ৬৪১৬)
ক্ষণস্থায়ী পৃথিবীর সময় খুবই অল্প। দেখতে দেখতে চলে যায় দিন। এ অল্প সময়ের মধ্যেই অনেক কিছু প্রস্তুত করতে হবে। পৃথিবী হচ্ছে পরকালের শস্যক্ষেত। পরকালের ফসল ফলাবার জন্যই মহান প্রভু আমাদের পৃথিবীতে প্রেরণ করেছেন। যেদিন পৃথিবীতে পরকালের ফসল ফলানো যাবে না, সেদিন পৃথিবীরও কোনো মূল্য থাকবে না। অতএব, দুই দিনের দুনিয়ার চাকচিক্যের পেছনে না পড়ে, আমাদের মনোযোগী হতে হবে পরকালের ফসল ফলানোর কাজে। দুনিয়াতে যা কিছু ফলাব- পরকালে তাই আমার সম্বল হবে। অনন্তকালের সঙ্গী হবে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana