শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১১:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কুলিয়ারচরের ফরিদপুরে খালটের রাস্তার দুইপাশ দখলদারদের কবলে কটিয়াদী সরকারি কলেজে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান গ্রামের বাজারে কচুর লতি বিক্রি করে ভাইরাল অধ্যাপক হোসেনপুরে ট্রাক্টর চাপায় শিশুর মৃত্যু বাবার রাজনৈতিক আদর্শে উদ্বেলিত হয়ে যুবদল থেকে সরে দাড়ালেন পুত্র শাহীন পাকুন্দিয়ায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু করিমগঞ্জে ইয়াবা ও গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক প্রধানমন্ত্রীই পারেন জনগণের সকল প্রত্যাশা পুরণে -কিশোরগঞ্জে চিত্র নায়ক কাঞ্চন পাকুন্দিয়ায় সরকার নির্ধারিত মূল্যে ধান ও চাল সংগ্রহ শুরু সাংবাদিক শিরিন হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ
কিশোরগঞ্জে ক্লিনিকে সেবা নিতে এসে টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণালংকারসহ চুরির প্রতিকার চেয়ে ভূক্তভোগীর সংবাদ সম্মেলন

কিশোরগঞ্জে ক্লিনিকে সেবা নিতে এসে টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণালংকারসহ চুরির প্রতিকার চেয়ে ভূক্তভোগীর সংবাদ সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টার:

কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের চিকিৎসা সেবার ক্লিনিকে সেবার সাথে রোগীদের টাকা,মোবাইল, চেকবই ও স্বর্নালাংকার চুরির ঘটনায় প্রতিকার না পেয়ে গতকাল দুপুরে কিশোরগঞ্জ প্রিন্ট মিডিয়া এসোসিয়েশন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক ভুক্তভোগী ও তার পরিবার। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শাহানা বেগম (৩৮), অভিযোগে বলেন, গত ১৭/১২/২০২১ ইং তারিখে তিনি অসুস্থ হয়ে কিশোরগঞ্জস্হ হেলথ এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়। এবং ২৩/১২/২০২১ ইং সকাল ৭.১৮ মিঃ এই ক্লিনিকের দায়িত্বরত নার্স রিয়া (২২) আমাকে ইনজেকশন দেওয়ার জন্য ডাক দেয় । আমার জ্যা মিনা আক্তার দরজা খুলে দিয়ে নার্স রিয়াকে দরজায় রেখে ওয়াশ রুমে চলে যায়। তখন আমি ঘুমিয়ে ছিলাম। কিছু সময় পর রিয়া এসে আমাকে ডেকে তুলে বলে, আপনার মোবাইল ও ব্যাগ চুরি হয়ে গেছে। আমি খুঁজে আমার ব্যাগ ও মোবাইল না পেয়ে বিষয়টি ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ও আমার চিকিৎসায় নিয়োজিত ডাক্তার আতাউর রহমানকে জানিয়েও কোন ফল হয়নি। পরে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় একটি জি.ডি করি, যাহার নং-১০৭৭ এবং অভিযোগ দায়ের করি। জি.ডি’র প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ মিঠামইন থেকে এস.আই লিটন গত ০৩/০৩/২০২২ ইং তারিখে আমার মোবাইলটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয় সেই সাথে আমি জানতে পারি এই ক্লিনিকের নার্স রিয়ার বাড়ীও মিঠামইন। এমনকি ক্লিনিক মালিক পক্ষের একজনের বাড়ীও হাওর এলাকায় । আমি খোঁজ নিয়ে ও ক্লিনিকের সি.সি ক্যামেরার ফুটেজে জানতে পারি ক্লিনিকে ঘটনার দিন সকাল ৭.১৫ মিঃ মূল গেইটটি খোলা হয়নি। ফলে ৭.১৮ মিঃ ব্যাগ ও মোবাইল চুরি করতে বাহিরের লোক আসা সম্ভব নয়। উক্ত ঘটনায় নার্স ও দায়িত্বরত লোকজনই জড়িত বলে আমি মনে করি। উল্লেখ্য যে, আমার ব্যাগে নগদ ৩০,০০০/- (ত্রিশ হাজার) টাকা, ০৪ ভরি স্বর্ণ ও ইসলামী ব্যাংক কিশোরগঞ্জ শাখার একটি চেক বই, যাহার একাউন্ট নং – ১৮১১৮, ইসলামী ব্যাংক কিশোরগঞ্জ শাখার একটি এটিএম কার্ড এবং আমার স্বামীর স্মার্ট কার্ডও ছিলো। বিষয়টি নিয়ে আমি ও আমার আত্নীয়রা বার বার ক্লিনিক মালিক কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেও কোন সুরাহা হয়নি। বরং মালিক পক্ষের মিঠু/ লিটু নামের ব্যক্তি আমাদের সাথে খারাপ আচরণ করেন। সেই সাথে থানায় অভিযোগ করার পর ০১৭১৮-৫৯১২২৩ নম্বর থেকে আতিক নামে পরিচয় দিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বেশ কয়েক বার চাপ সৃষ্টি করে । আমি মোবাইল নম্বরটি আমার ইমুতে সেভ করে জানতে পারি নম্বরটি মামুন নামের একজনের উক্ত ঘটনায় আমি নগদ টাকাসহ ৩ লাখ টাকার মালামাল চুরির সাথে জড়িত এসব নার্স,কর্তৃপক্কের বিরুদ্ধে তদন্ত পৃর্বক ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রসাশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করেন সেই সাথে ক্লিনিকের সেবার মান ও কাগজপএ সঠিক আছে কিনা তা দেখার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana