শুক্রবার, ০১ Jul ২০২২, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

চার-পাঁচ মিনিটের মধ্য পুরো লঞ্চ ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন

চার-পাঁচ মিনিটের মধ্য পুরো লঞ্চ ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন

আমার দুই বছরের মেয়ে রাতে খাবার খেতে উঠেছিল, তখন বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার শুনি বাইরে। কেবিন থেকে বারান্দায় গিয়ে দেখি, লঞ্চের পেছনে আগুন। চার-পাঁচ মিনিটের মধ্য পুরো লঞ্চ ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যায়। তখন মাথায় কোনো কাজ করছিল না। সে সময় লঞ্চ মাঝনদীতে। ইঞ্জিন চলমান ছিল। আমি তখন মেয়ের বাবাকে বললাম, চলো, নদীতে ঝাঁপ দিই। সে রাজি হলো না। অনেকেই ঝাঁপ দিয়ে সাঁতার কাটছিল। একটু পরেই দেখি একজন মহিলা পরনের শাড়ি খুলে লঞ্চের রেলিংয়ের সঙ্গে বেঁধে বেয়ে বেয়ে নদীতে নামছিল। আমরাও তখন নামতে সাহস করি। এরপর আমার মেয়েকে ওর বাবার পিঠের সঙ্গে ওড়না দিয়ে বেঁধে দিই। ওর বাবা মেয়েকে নিয়ে নদীতে লাফ দেয় এবং আমিও দিই। এ সময় আমার পা ভেঙে যায়।
এই ভয়ঙ্কর বর্ণনা দিয়েছেন ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে অগ্নিকাণ্ডের শিকার লঞ্চ অভিযান-১০-এর যাত্রী মেহেরিনা কামাল মুনমুন। স্বামী-সন্তানসহ ঢাকা থেকে বাবার বাড়ি বরগুনায় আসছিলেন তিনি। তাদের বাড়ি বরগুনা শহরের কলেজ রোডে।
অগ্নিকাণ্ডের বর্ণনা দিতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন মুনমুন। বলেন, ‘আমরা আজ নিরুপায় হয়ে তাকিয়ে তাকিয়ে মানুষের মৃত্যু দেখেছি, আহাজারি শুনেছি। আমাদের জীবনটা কোনোমতে বেঁচে গেছে।’
মাঝনদীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে জীবন বাঁচানোর কোনো উপায় না পেয়ে অনেকেই ভয়ে-আতঙ্কে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে। এমনি একজন বরগুনা শহরের ব্যবসায়ী টেইলর ফরিদ আহমেদ। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত। ঢাকায় চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। সঙ্গে ছিলেন তার ছেলে দীপ্র আহমেদ (২৫)। তিনি সময়ের আলোকে বলেন, বাবা পরিস্থিতি দেখে ভয়ে-আতঙ্কে বাকরুদ্ধ হয়ে গেছেন। কথা বলতে পারছেন না।
ঢাকা থেকে ছুটিতে বাড়ি ফিরছিলেন সৌরভ আহমেদ আশিক (২৬)। কোনো উপায় না দেখে সঙ্গে থাকা ল্যাপটপসহ মালামাল রেখে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে তীরে উঠতে সক্ষম হন তিনি। তিনি বলেন, মানুষ বাঁচার জন্য সবকিছু করতে পারে। তেমনি এক দুঃসহ অভিজ্ঞতা মোকাবিলা করে বেঁচে ফিরেছি।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana