সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:০০ পূর্বাহ্ন

পাগলা মসজিদে এবার মিললো স্বর্ণালংকারসহ ১৫ বস্তা টাকা

পাগলা মসজিদে এবার মিললো স্বর্ণালংকারসহ ১৫ বস্তা টাকা

স্টাফ রিপোর্টার:

কিশোরগঞ্জ শহরের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদে আটটি লোহার দান সিন্দুক রয়েছে। প্রতি তিন মাস পর পর সিন্দুকগুলো খোলা হয়। কিন্তু করোনার কারণে এবারও ৪ মাস ৬ দিন পর আজ ১২ মার্চ দান সিন্দুকগুলো খোলা হয়েছে। সিন্দুকগুলো থেকে এবার রেকর্ড পরিমাণ স্বর্ণালংকারসহ ১৫ বস্তা টাকা পাওয়া গেছে।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. নাজমুল ইসলাম সরকার টাকা গণনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া টাকা গণনার কাজে রুপালি ব্যাংকের এজিএম ও অন্যান্য কর্মকর্তা, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য এবং মসজিদ কমপ্লেক্সে অবস্থিত মাদরাসা ও এতিমখানার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নিয়েছেন।
এর আগে সর্বশেষ ৬ নভেম্বর দান সিন্দুকগুলো খোলা হয়েছিল। তখন ৩ কোটি ৭ লাখ ১৭ হাজার ৫৮৫ টাকা এবং বৈদেশিক মুদ্রা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গিয়েছিল। এবার ৪ মাস ৬ দিন পর দান সিন্দুকগুলো খোলা হলো।
মসজিদ পরিচালনা কমিটি সূত্রে জানা গেছে, সকাল ৮টায় জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মসজিদের আটটি দান সিন্দুক খোলা হয়েছে। দান সিন্দুকগুলো খুলে বস্তাভর্তি টাকাগুলো আনা হয়েছে গণনার জন্য। এখন চলছে টাকা গণনার কাজ।
এলাকাবাসী ও দূর-দূরান্ত থেকে আসা লোকজন সূত্রে জানা যায়, এই মসজিদে মানত করলে মনের বাসনা পূর্ণ হয়, এমন ধারণা থেকে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই এখানে দান করে থাকেন।
জনশ্রুতি আছে যে, পাগলবেশী এক আধ্যাত্মিক পুরুষ খরস্রোতা নরসুন্দা নদীর মধ্যস্থলে মাদুর পেতে ভেসে এসে বর্তমান মসজিদের কাছে স্থিতু হন এবং তাকে ঘিরে আশেপাশে অনেক ভক্তকূল সমবেত হন। ওই পাগলের মৃত্যুর পর তার সমাধির পাশে পরবর্তীতে এই মসজিদটি গড়ে উঠে। ফলে কালের বিবর্তনে মসজিদটি ‘পাগলা মসজিদ’ নামে পরিচিত পায়।

 

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2021
Design By Rana